লোহাগড়া সরকারি কলেজের খেলার মাঠ সাত মাস ধরে পানির নিচে

প্রকাশিত: ৩:৫৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৬, ২০২১

নড়াইল জেলা প্রতিনিধি।।

নড়াইলের লোহাগড়া সরকারি আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের খেলার মাঠ সাত মাস ধরে পানির নিচে। কলেজ কর্তৃপক্ষ জানান, সাত বছর ধরে বছরের সাত মাসই মাঠে পানি জমে থাকে। কলেজের শিক্ষার্থীরা ছাড়াও উপজেলা সদর ও আশেপাশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা মাঠটি ব্যবহার করতে পারে না। বন্ধ রয়েছে নানা সামাজিক ও সাংস্কৃতিক আয়োজনও।

২০১৫ সাল থেকে প্রতি বছর মে থেকে নভেম্বর পর্যন্ত পানিতে ডুবে থাকে মাঠটি। বিশাল এখেলার মাঠ লোহাগড়া উপজেলা সদরের প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত। লোহাগড়া সরকারি আদর্শ মহাবিদ্যালয় ছাড়াও লোহাগড়া সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, লোহাগড়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, মিতালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মরিচ পাশা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, চাচই ধানাইড় মাধ্যমিক বিদ্যালয়, প্রাথমিক বিদ্যালয় ও লোহাগড়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ উপজেলা সদরের ও আশেপাশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা মাঠটি ব্যবহার করত। শিক্ষা বিভাগের জাতীয় পর্যায়ের বাছাই পবের্র ক্রীড়া প্রতিযোগিতা হতো এ মাঠে। শরীরচর্চা করতে উপজেলা সদর ও আশেপাশের লোকজন এ মাঠ ব্যবহার করেন। কিন্তু সাত বছর ধরে প্রায় সাত মাস মাঠটি জলাবদ্ধ থাকায় সবাই পড়েছে বিপাকে।

 

 

লোহাগড়া সরকারি আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আকবর আহমেদ বলেন, এ অবস্থার কথা সংশি­ষ্ট সব মহলে তুলে ধরার চেষ্ঠা করেছি। কিন্তু এ পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ দেখলাম না। কলেজের দক্ষিণ পাশে মাঠটি অবস্থিত। মাঠের উত্তর ও দক্ষিণ পাশে চলাচলের সড়ক।সড়কের দক্ষিণ পাশ দিয়ে রয়েছে দোকান ও ক্লিনিক এবং পূর্ব ও পশ্চিম পাশে রয়েছে বাড়িঘর। তাই বৃষ্ঠির পানি বের হওয়ার কোনো রাস্তা নেই। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাঠ পানিতে থইথই করছে। মাঠ জুড়ে রয়েছে কচুরিপানা ও ঘাসের ঝোপ। মাঠের পানিতে হাঁসগুলো সাতার কাটছে। মাঠে ফেলা হচ্ছে ময়লা-আবর্জনা ও আশেপাশের ক্লিনিকের বজর্য। এ ময়লা-আবর্জনা পানির সঙ্গে মিশে পঁচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে।

 

 

স্থানীয় লোকজন জানান, মাঠের পানি নিস্কাশনের জন্য চারটি কালভার্ট ছিল। অপরিকল্পিতভাবে বাড়িঘর ও অন্যান্য স্থাপনা গড়ে ওঠায় কালভার্ট গুলো বন্ধ হয়ে গেছে। মাঠের পূর্ব পাশের বাসিন্দা মৌরানী বিশ্বাস জানান, গত মে মাস থেকে এ পর্যন্ত পানির নিচে রয়েছে মাঠটি। মাঠটিতে নভেম্বর পর্যন্ত পানি-কাঁদা থাকে। আমাদের ছেলে-মেয়েরা খেলা ধুলা করতে পারে না। পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়াডের্র কাউন্সিলার আনিচুর রহমান বলেন, নগর উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় একটি বরাদ্দ হচ্ছে। সেটি দিয়ে মাঠের দক্ষিণ পাশ থেকে একটি নালা লোহাগড়া বাজার হয়ে নবগঙ্গা নদীতে নামবে। পৌরসভা এটি বাস্তবায়ন করবে। এতে মাঠের জলবদ্ধতা দুর হবে।